চকরিয়ায় ভিডিও ফোনকলে কথা না বলায় অভিমানে স্ত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশ: ২৬ জুলাই, ২০১৯ ৩:১৩ : অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক,চকরিয়া
কক্সবাজারের চকরিয়ার হারবাং ইউনিয়নের জেসমিন আক্তার (১৯) এর সাথে লোহাগাড়া উপজেলার আধুনগরের মো. ইউনুছের বিয়ে হয় ৭মাস আগে। ইতিমধ্যে জেসমিন ৬মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বিয়ের পর থেকে জেসমিনের বাপের বাড়িতেই বসবাস করে বিভিন্ন পরিবহণের ড্রাইভিং করতো ইউনুছ।
তাদের সেই সুখের সংসার হঠাৎ তছনছ হয়ে গেছে। তুচ্ছ ঘটনায় জেসমিন আক্তার ফাঁস খেয়ে আত্মহত্যা করায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে হারবাং ইউনিয়নের বৃন্দাবন নয়াবাজার এলাকার বসতঘরে স্বামীর সঙ্গে অভিমান করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে জেসমিন। নিহত জেসমিন ওই এলাকার আমির হামজার মেয়ে।
পরিবার সদস্যদের উদ্ধৃতি দিয়ে হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম বলেন, জেসমিন-ইউনুছের বিয়ের পর ৭মাস কেটে গেলেও ইউনুছের মাসহ পরিবারের সদস্যরা জেসমিনকে দেখেনি। পুত্রবধূ অন্তঃসত্ত্বা শুনে মা মুঠোফোনে ছেলে ইউনুছের কাছে আবদার করে ইমু ভিডিওর মাধ্যমে বউমাকে একবার দেখতে।
মায়ের এ আবদার মেটাতে ইউনুছ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় স্ত্রী জেসমিনকে একটু ভালমানের কাপড় পড়ে আসতে বলে। এ অনুরোধে সাড়া দেয়নি জেসমিন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ফোন সেটটি ভেঙ্গে ফেলে ইউনুছ ঘরের বাইরে চলে যায়। তাতে স্বামীর উপর অভিমান ও ক্ষোভ প্রকাশ করে দুপুর ১টায় ঘরের বীমে ওড়না প্যাচিয়ে ফাঁস খেয়ে আত্মহত্যা করে জেসমিন।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, জেসমিনের আত্মহত্যা নিয়ে কোন পক্ষের অভিযোগ নেই। স্থানীয় চেয়ারম্যান মিরানও পুলিশকে জানিয়েছে এটি আত্মহত্যা। তাই পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদনের প্রেক্ষিতে বিনাময়নাতদন্তে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।##