ঈদগাঁওর ফকিরাবাজারে এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে গরুর হাট উচ্ছেদ।। ইজারাদারের দাবী হয়রানি করছে প্রশাসন

প্রকাশ: ৭ আগস্ট, ২০১৯ ১১:৪৪ : অপরাহ্ন

এস এম তারেক।ইসলামাবাদের শাহ ফকিরাবাজারে সদর সহকারী কমিশনার মোঃ শাহরিয়ার মোক্তারের ( ভূমি) নের্তৃত্বে গরুর হাট উচ্ছেদ করা  হয়েছে। ৭ আগস্ট বিকেলে এ অভিযান পরিচালিত হয়। হাটের ইজারাদার আক্তার হোসেন জানান, সহকারী কমিশনার সম্পূর্ণ অবৈধভাবে গরুর হাটটি উচ্ছেদ করেছেন। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও হাটবাজার দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি/ ১৪২৬ এর আহবায়ক এ.এইচ এম মাহফুজুর রহমান সাক্ষরিত কাগজপত্রে হাটে গরু ছাগল বিক্রি করা যাবেনা এ ধরনের কথা লিখা নেই। অভিযান সম্পর্কে সহকারী কমিশনারের  (ভূমি)  নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, এ ধরনের অস্থায়ী হাট বসাতে হলে উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি নিতে হয়। অনুমতি না নেওয়ার কারনে হাট উচ্ছেদ করা হয়েছে। ইজারাদার আক্তার হোসেন জানান, অবৈধ এ উচ্ছেদের কারণে বিপুল পরিমান আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি হাটের সুনামও ক্ষুন্ন হয়েছে চরমভাবে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একটি শক্তিশালী চক্র  আদালতে মামলা ঠুকে দিয়ে সিন্ডিকেটিংয়ের মাধ্যমে মাসের পর মাস ধরে খাস কালেকশনের নামে সরকারকে বিপুল পরিমান রাজ¯^ বঞ্চিত করে এলেও প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। উল্টো বৈধ ইজারাদারই হয়রানি শিকার হল প্রশাসনের হাতে। এদিকে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য মাহমুদুল করিম মাদু ফকিরাবাজারে গরুর হাট উচ্ছেদের বিষয়টিকে অবৈধ হিসেবে দেখছেন। কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, ইজারাদারের নিকট  উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক প্রদত্ত কাগজপত্রে গরুর হাট বসানো যাবে না এ ধরনের কোন কথা লিখা নেই। তিনি আরো জানান, রাস্তার উপর অবৈধ হাট না বসানোর ব্যাপারে আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নির্দেশনা থাকলেও ঈদগাঁওর একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট তা মানছে না। শ্রীঘ্রই ঈদগাঁওতে মহাসড়ক থেকে অবৈধ গরুর হাট অপসারনের ব্যাপারে তিনি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।