ঈদগাহ- কক্সবাজার মহাসড়কে ফুটপাত নির্মাণ কিংবা সংস্কার জরুরী

প্রকাশ: ৯ অক্টোবর, ২০১৯ ৩:৪২ : অপরাহ্ন

মিছবাহ উদ্দিন#

ঈদগাঁও থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত মহাসড়কে ফুটপাত নির্মাণ কিংবা সংস্কার করা জরুরী। ৩০ কিলোমিটারের বেশী এ সড়কের প্রায় স্থানে রাস্তা থেকে ফুটপাত ১/২ ফুট নিচু হওয়ায় অধিকাংশ দূর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পথচারী ও যানবাহন গুলো খাদে পড়ে দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত! বিশেষ করে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করা ছোট যানবাহন- ইজিবাইক, রিকশা, মোটরসাইকেল, সিএনজি, মাহিন্দ্রা ও ছাড়পোকা গাড়ি গুলো খাদে পতিত হচ্ছে ফুটপাত না থাকার কারণে। এ সড়কে সিংহভাগ এক্সিডেন্ট পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, দু’টি গাড়ি ওভারটেক করতে গিয়ে অনেক সময় ফুটপাতে নেমে যেতে হয়, কিন্তু ফুটপাত ১/২ ফুট নিচু হওয়ায় দূর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে পথচারী ও যানবাহনগুলো। এদিকে সংশ্লিষ্টদের কোন উদ্যোগ না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভোক্তভুগীরা।

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাহবুব আলম মাবু বলেন, ঈদগাহ বাসস্টেশন থেকে কক্সবাজার সড়কে যাতায়াত করতে হচ্ছে ঝুঁকি নিয়ে। প্রথমত মহাসড়ক হিসাবে চাহিদার চেয়ে প্রশস্ত ছোট হওয়ার কারণে, দ্বিতীয়ত এ সড়কের উভয়পাশে পরিকল্পিত ফুটপাত না থাকার কারণে।
ব্যবসায়ী আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমি নিজেও এসড়কের মেহেরঘোনা মাইজপাড়া রোডের সামনের অংশে দূর্ঘটনার শিকার হয়েছি। বড় বাসকে সাইড দিতে গিয়ে টমটমটি পূর্বপাশে খাদে পড়ে গিয়েছিল। যেটি এখনো সংস্কার করা হয়নি।
আলিরাজ পরিবহনের চেয়ারম্যান সিরাজ আকবর বলেন, ঈদগাহ টু কক্সবাজার সড়কে পরিকল্পিত ফুটপাত না থাকায় পরিবহন গুলোর জন্যে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোন সময় এক্সিডেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। নিরাপদ চলাচলে দ্রুত ফুটপাত নির্মাণের দাবী জানান তিনি।
কক্সবাজার সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা বলেন, মহাসড়ক ফুটপাতের বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দেখভাল করেন, তারা নির্দেশ দিলে আমরা ফুটপাত নির্মাণ করতে পারবো। তবে বর্তমান সরকার এ সড়কটি ৪ লেনে উন্নত করার জন্যে অনুমোদন দিয়েছেন, আশাকরি কয়েক বছরের মধ্যে নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হবে।