উপজাতীয় মুসলিমদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে প্রশংসনীয় উদ্যোগ নিয়েছেন ঈদগাঁওর এক চিকিৎসক।

প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৮:৪৪ : অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক,ঈদগাঁও
উপজাতীয় মুসলিমদের আর্থসামাজিক উন্নয়ন প্রশংনীয় উদ্যোগ নিয়েছেন সদরের ঈদগাঁওর এক চিকিৎসক।
জানা যায়, ঈদগাঁও মড়েল হাসপাতাল এন্ড ডায়া বেটিস কেয়ার সেন্টারের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ডা: মো: ইউসুফ আলী মানবকল্যান কাজ তথা
অসহায়,গরীব,দুস্ত রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা সেবা সহ নানান মানবসেবামুলক কাজকর্মে নিজেকে অনেকদিন ধরে নিয়োজিত রেখেছে। তেমনি তার হাসপাতালে চিকিৎসা করতে আসার পরে উপজাতীয় মুসলিমদের সাথে পরিচয় ঘটে। তাদের সমস্যার কথা জেনে এ পরিবার গুলোর সন্তানদের লেখাপড়ার সু ব্যবস্থা করে দেয়। এখানে বর্তমানে উনিশ জনের মত উপজাতি মুসলিম রয়েছে। অনেকে ঈদগাঁওর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে লেখাপড়া করে মানুষের মত মানুষ হওয়ার চেষ্টা করছে,আবার অনেকে চাকরী করে নিজেরা প্রতিষ্টিত হওয়ার প্রানপর চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তৎমধ্যে কয়েকজন উপজাতীয় মুসলিমদের সাথে কথা হলে বেরিয়ে আসে আসল তথ্য। আলীকদম থেকে বেড়াতে আসা প্রায় অর্ধশত বছর বয়সী আবু বক্কর ছিদ্দিক (পূর্বের নাম অতিরম ত্রিপুরা)’সাথে কথা হলে তিনি জানান,কারো প্ররোচনায় পড়ে নয়, এফিডেবিট মূলে স্ব ইচ্ছায় মুসলিম হয়েছি।
তার ছেলে সাইফুল ইসলাম (পূর্বের নাম রাফেল ত্রিপুরা) তিনি বর্তমানে হাসপাতালে চাকরীরত।
তিনি বলেন,বাইবেলে লেখা আছে যে তোমরা সত্যকে খোঁজ,সত্য তোমাদের মুক্ত করবে। সে সত্যকে খুঁজতে গিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেন বলেও জানিয়েছেন। তবে তার মা,বাবা,ভাইসহ সবাই মুসলিম হয়েছে। অন্যদিকে আলীকদমের জেসমিন আক্তার (পূর্বের নাম ঝর্না ত্রিপুরা), রোয়াংছড়ির সাদেকুল ইসলাম (জয়খর্ন ত্রিপুরা),গয়ালমারার নুরুল ইসলাম ( প্রশান্ত ত্রিপুরা) সবাই স্ব-জ্ঞানে বুঝে শুনে এফিডে বিটমুলে পবিত্র ধর্ম ইসলাম গ্রহন করেছেন বলে জানিয়েছেন। তবে তারা আরো উল্লেখ্য করন যে,ইসলাম ধর্ম গ্রহন করার পর মানবকল্যান মুলক কাজে অংশ নেওয়া ডা: ইউছুপ আলীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তাদেরকে মান বিক দৃষ্টিকোন দিয়ে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন। তবে চিকিৎসক ইউসুফ আলীর সাথে কথা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান,উপজাতীয় মুসলিম শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ব্যবস্থা করছি। যারা বড় তারা তাদের নিজস্ব কর্মসংস্থান করে চলছে। তবে তার পরার্মশ অনুযায়ী তারা চলছে বলেও জানান।