কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-০৫ জন আসামী

প্রকাশ: ১১ জুলাই, ২০১৯ ১০:৩১ : পূর্বাহ্ন

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত ০৫ জনকে আটক করেছে। গত ০৯/০৭/২০১৯ ইং তারিখ হতে সকাল হতে ১০/০৭/২০১৯ ইং তারিখ সকাল পর্যন্ত অফিসার ইনচার্জ জনাব মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান এর নেতৃতে পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশনস্ এ্যান্ড কমিউনিটি পুলিশিং), মোঃ ইয়াছিন পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টিলিজেন্স) মোহাম্মদ আরিফ ইকবাল,এসআই প্রদীব চন্দ্র পোদ্দার এসআই রাজিব চন্দ্র পোদ্দার এসআই সনৎ বড়–য়া এসআই মোঃ দেলোয়ার সঙ্গীয় ফোর্স এবং ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান খান সহ কক্সবাজার সদর মডেল থানা এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ০৫ জন আসামীকে গ্রেফতার করেন কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলেন
কক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-২৮ তাং০৯/০৭/২০১৯ ইং ধারা-মাদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন ২০১৮ ৩৬(১) এর ১০(ক)/৪১ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী
১।মোঃ হাসান @ ডিস হাসান,পিতা-মৃত ফজল করিম,সাং-বৈদ্যঘোনা হাসানের বাড়ী, ০৮ নং ওয়ার্ড,থানা ও জেলা-ক্সবাজার।
কক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-২৭ তাং০৯/০৭/২০১৯ ইং ধারা-মাদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন ২০১৮ ৩৬(১) এর ১০(গ)/৩৮/৪১ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী।

২।মোঃ দৌলত আজিম ভূইয়া, @ সুমন,পিতা-মৃত কামরুল আজিম ভূইয়া,সাং-হাট হাজারী রোড,কাতালগঞ্জ,বাসা- ৩৬/৪৩,নওশর আলী বাড়ী,চক বাজার,থানা-পাঁচলাইশ,জেলা-চট্টগ্রাম।
৩।রুবেল রানা,পিতা-আনোয়ার হোসেন,সাং-ওয়াইদ আলী হাজী পাড়া বাড়ী, ০৬ নং ওয়ার্ড চাঁদখালী ইউপি,রামানন্দী,থানা ও জেলা-লক্ষীপুর।
কক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-২৬ তাং০৯/০৭/২০১৯ ইং ধারা-মাদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন ২০১৮ ৩৬(১) এর ১০(খ)/৪১ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী
৪।নুরুল হাকিম @ হাকিম,পিতা-মৃত নুর আলম,সাং-গোলকবহর,চকবাজার থানা-পাঁচলাইশ,জেলা-চট্টগ্রাম। বর্তমান-কুতুপালং কচুবুনিয়া,কবিরের ভাড়া বাসা,থানা-উখিয়া,জেলা-কক্সবাজার।
ক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-২৫ তাং০৯/০৭/২০১৯ ইং ধারা-৩৯৯/৪০২ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী।
৫।মোঃ সোহেল,পিতা-মৃত মোঃ ইউনুছ ড্রাইভার,সাং-দক্ষিন রুমালিয়াছড়া,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে তাহাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এলাকার আম জনতা ও পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তার নিশ্চিতের লক্ষ্যে মামলায় অভিযুক্ত ও চিহিৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।