চকরিয়ায় বন্যাদুর্গত মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী ও খাবার বিতরণে উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী

প্রকাশ: ১৬ জুলাই, ২০১৯ ৯:৫১ : পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক,চকরিয়া
গত ১৮ মাচ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চকরিয়া উপজেলার সর্বস্তরের জনগণের বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে জনগণের ভাগ্যউন্নয়নে কাজ শুরু করেছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আলহাজ¦ ফজলুল করিম সাঈদী। চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভা (তাঁর নির্বাচনী এলাকার) ইউনিয়ন থেকে ওয়ার্ড সর্বত্রই সাধারণ মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকছেন সবসময়।
এমনকি স¤প্রতি সময়ে ভারী বর্ষণ ও মাতামুহুরী নদীতে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ঠ বন্যায় উপজেলার যেসব মানুষ গৃহহারা হয়েছে কিংবা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তাদের পাশে দিনরাত থাকছেন জনগণের নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী। এমনকি গৃহহারাদের আশ্রয় দিয়ে তাদের খাবারেরও ব্যবস্থা করেছেন। এতেই শেষ নয় সরকারের উচ্চ মহল ও জেলা প্রশাসনের কাছে ধর্না দিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থাও করছেন তিনি।
শুধু তাই নয় কয়েকদিন আগে চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ ফজলুল করিম সাঈদী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে গণভবনে সাক্ষাত করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী জননেতা ওবায়দুল কাদের, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালসহ দলীয় শীর্ষ অনেক নেতা ও মন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী।
চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে এলাকায় বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শ মোতাবেক আমি আজ ৭/৮ দিন ধরে চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বন্যার্তদের সেবা ও সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি তখনই আমার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র শুরু হয়। বিশেষ করে আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার নিজের দল আওয়ামী লীগের কিছু লোক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী বলেন, ঢাকার পল্টন পল্টন থানার যে মামলায় আমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা রয়েছে বলে উল্লেখ করে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানাভাবে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তা সত্য নয়। সেই মামলায় আমি বর্তমানে জামিনে আছি। জামিনে থাকা অবস্থায় গ্রেপ্তারী পরোয়ানা থাকতে পারে না।
মূল বিষয় হচ্ছে চকরিয়া উপজেলা নির্বাচনে আমাকে সর্বস্তরের জনতা বিপুল ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করেছে। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আমি জনগণের ভালবাসা আর সমর্থনের মূল্য দেয়ার জন্য দিন-রাত তাদের সুখে-দু:খে ভাগিদার হচ্ছি। যেসব নেতা জনগণের পাশে দাঁড়াতে পারছে না তারাই আমার জনপ্রিয়তা নিয়ে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। চকরিয়াবাসির ভালোবাসা ও দোয়া আমার সঙ্গে আছে। তাই শতচেষ্ঠাও করে কেউ আমাকে জনগনের কাছ থেকে দুরে রাখতে পারবেনা ইনশাল্লাহ।
উল্লেখ্য-ফজলুল করিম সাঈদী চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ ফেডারেশনের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক, চকরিয়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক, জেলা ট্রাক-মিনিট্রাক-পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। চকরিয়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার নিন্দা ও ক্ষোভ : চকরিয়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ ফজলুল করিম সাঈদীকে নিয়ে নানা অপপ্রচার এবং ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা-ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ক্রীড়া সংস্থার নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিতে চকরিয়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি শওকত আল, নুরুল আবছার, পরিমল বড়-য়া, সাজ্জাদ হোসেন, ফুটবলার সাগরসহ একাধিক নেতৃবৃন্দ এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন যদি অবিলম্বে জনপ্রিয় উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র বন্ধ করা না হয় তাহলে জনগণের সাথে নিয়ে তা মোকাবেলা হবে।##