চকরিয়ায় মুক্তিপণ আদায় চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার, বন্দুক উদ্ধার

প্রকাশ: ১ জুলাই, ২০১৯ ১০:১০ : পূর্বাহ্ন

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া
চকরিয়ায় পাহাড়ি জনপদে ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায় চক্রের সদস্য তিন সন্ত্রাসীকে গহীন জঙ্গলের ভেতর থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় পুলিশ তাদের কাছ থেকে দেশীয় তৈরি দুইটি (এলজি) লম্বা বন্দুক উদ্ধার করেছে। অভিযানের সময় সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করে ধরতে গিয়ে কাঁটা তারে জড়িয়ে শফিকুল ইসলাম নামের এক পুলিশ কনস্টেবল গুরুতর আহত হয়েছে। গতকাল রোববার রাত আটটার দিকে উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নস্থ বনাঞ্চলের ভেতরে পূর্ণগ্রামের কালা পাড়া এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের মুচ্ছি কাটা এলাকার মৃত মনজুর আলমের ছেলে মো.আবদুল করিম (২০), একই ইউনিয়নের ধরপাড়া এলাকার বজল আহমদের ছেলে মো.জয়নাল আবেদীন (১৯) ও তাদের অন্যতম সহায়তাকারী ধরপাড়া এলাকার কবির আহমদের ছেলে জয়নাল আবেদীন (৩৮)।
থানা পুলিশ জানায়, রোববার বিকেলের দিকে উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের পূর্ণগ্রামের কালা পাড়া এলাকাস্থ বনাঞ্চলের ভেতরে আগ্নেয়াস্ত্রসহ একদল পাহাড়ী সন্ত্রাসী অবস্থান নেয়ায় খবর পেয়ে চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমানের নির্দেশে এসআই মাজহারুল ইসলাম ও এএস আই কামাল হোসেন (১) ও কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে অভিযানে নামেন।
অভিযানের সময় ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি টেরপেয়ে পালানোর সময় দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়। এসময় পুলিশ তল্লাসি চালিয়ে বজল আহমদের ছেলে জয়নালের ঘর থেকে দেশীয় তৈরি দুটি লম্বা বন্দুক উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের শিকারোক্তির মতে পরে পুলিশ খুটাখালী বাজার থেকে অন্যতম সহায়তাকারী ধরপাড়া এলাকার কবির আহমদের ছেলে জয়নাল আবেদীন গ্রেফতার করা হয়েছে।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.হাবিবুর রহমান বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে খুটাখালী গহীন বনাঞ্চলের ভেতর থেকে দুইটি অস্ত্রসহ তিন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা পাহাড়ি এলাকায় সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে মুক্তিপণ দাবী করতো। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে বেআইনী অস্ত্র রাখার দায়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। ##