চুয়েটে শেষ হলো ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ রাউন্ড

প্রকাশ: ১৩ এপ্রিল, ২০১৯ ৩:০৪ : অপরাহ্ন

চুয়েট সংবাদদাতা।। উদ্যোক্তা ও উদ্ভাবনী ভাবনার খোঁজে চট্টগ্রাম ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজিতে (চুয়েট) শেষ হয়েছে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ রাউন্ড। দেশ গঠনের তরুণদের উদ্ভাবনী ভাবনা ও উদ্যোগ ব্যবহার করার লক্ষে ইয়াং বাংলা ও আইসিটি বিভাগের আইডিয়া প্রকল্পের আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে চলছে এই স্টার্টআপ প্রতিযোগিতা।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) দুপুরে, বিশ্ববিদ্যালয় অডিটোরিয়ামে পিচিং রাউন্ডের মধ্য দিয়ে শেষ এ কর্মসূচি। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম এবং কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মশিউল হক উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্টের কনসালট্যান্ট ম্যানেজার মো. দেওয়ান আদনান, সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনশফরমেশন- সিআরআই’র অ্যাসিটেন্ট কো-অর্ডিনেটর মো. আসাদুজ্জামান ভূঁইয়া, ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ অ্যাসিট্যান্ট কোঅর্ডিনেটর সাকিব হাসান অংশ নেন।
পিচিং শেষে তিনটি দলকে বাছাই করা হয়। যারা সাভারে অনুষ্ঠেয় জাতীয় স্টার্টআপ ক্যাম্পে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দলগুলোর সঙ্গে অংশ নেবেন দেশসেরা হওয়ার লড়াইয়ে।
এরআগে, বুধবার (১০ এপ্রিল) ফেনী বিশ্ববিদ্যালয় অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় বিশেষ কর্মশালা। যেখানে স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন আয়োজক সংস্থার প্রতিনিধিরা। দু’দিনের আয়োজনে সহায়তা করেন ইয়াং বাংলার চুয়েট ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর আবির হাসান ও ফাইরুজ আরিফিন খান।
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগের ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনারশিপ একাডেমি-আইডিয়া প্রকল্প এবং দেশের তরুণদের স্বপ্নের ও সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম ইয়াং বাংলা’র যৌথ উদ্যোগে চলছে এ স্টার্টআপ প্রতিযোগিতা।
যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল কলেজের স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পর্যায়ের ছাত্রছাত্রীরা ১ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট টিম গঠন করে নিজের সুবিধা অনুসারে পূর্বে নির্ধারিত ৪০টি ক্যাম্পাসের যে কোনো একটিতে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ঐ ভেন্যুতে নির্দিষ্ট তারিখে অংশগ্রহণ করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের দুদিনের আয়োজনের প্রথম দিন কর্মশালা এবং দ্বিতীয় দিন পিচিং অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
ক্যাম্পাস পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাছাই করা হবে ৩টি করে দলকে। ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২০টি দল নিয়ে সাভারে অনুষ্ঠিত হবে ‘জাতীয় স্টার্টআপ ক্যাম্প। সেখান থেকে নির্বাচন করা হবে সেরা ১০ উদ্ভাবনী ভাবনা। যারা পেতে পারে সর্বোচ্চ ১৫ কোটি টাকার সহায়তা।