পেকুয়া উপজেলার নব নির্বাচিত চেয়ারম্যানের ১৪ বছর সাজা

প্রকাশ: ৯ মে, ২০১৯ ৬:৫৪ : অপরাহ্ন

আদালত প্রতিনিধি।।কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও পেকুয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম র‌্যাবের দায়ের করা মামলায় ১৪ বছরের সাঁজা দিয়েছে মহামান্য আদালত।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে কক্সবাজার স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিজ্ঞ বিচারক খন্দকার হাসান মাহমুদ ফিরোজ এ রায় ঘোষণা করেন।

জাহাঙ্গীর আলমের আইনজীবি অ্যাডভোকেট আমজাদ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অ্যাডভোকেট আমজাদ হোসেন জানান, অস্ত্র আইনে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে একটিতে ১৪ বছর ও অপরটিতে ৭ বছর মোট ২১ বছর সাঁজা দিয়েছে আদালত।

তবে এ সাঁজা একের পর এক ভোগ করবে না যৌথভাবে ভোগ করবে, তাই সর্বপুরি মোট ভোগ্য সাঁজা ১৪ বছরই বলা যায়। তিনি আরো বলেন, ‘আমার মক্কেলের ন্যায় বিচার নিশ্চিত করার জন্য আমরা উচ্চ আদালতের আশ্রয় নেব।’

এ প্রসঙ্গে সরকারী কৌঁসুলী অ্যাডভোকেট মমতাজুল ইসলাম জানান, ‘জাহাঙ্গীর আলমকে আদালত আজ ১৪ বছরের সাঁজা দিয়েছে। তার পূর্ণাঙ্গ সাঁজা এখনো কাউন্ট করিনি। তবে আমি ঠিক শিউর না কেননা অস্ত্র ও গুলির বিষয় রয়েছে।’

জানা যায়, ২০১৭ সালের ১৩ আগস্ট রাত ৩ টার দিকে র‌্যাব-১ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর রুহুল আমিনের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল যুবলীগ নেতা ও সেসময়ের কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে ২ টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ১১ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে তিনি সহ তার ৪ সহোদরকে আটক করে নিয়ে যান।

পরে জাহাঙ্গীরের ছোটভাই ওসমান সরওয়ার বাপ্পিকে ছেড়ে দিলেও তার অপর ৩ ভাই আলমগীর (৪২), আজমগীর প্রকাশ আজম (৩৮) ও মোহাম্মদ কাইয়ূমকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। কয়েকমাস জেল খেটে সবাই জামিনে মুক্ত হয়।

ওইসময় র‌্যাব বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করে, যার এসটিপি নং ১৫৮/১৭।