রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহে কক্সবাজারে আইসিসি’র প্রধান প্রসিকিউটর

প্রকাশ: ১৯ জুলাই, ২০১৯ ১২:৫৪ : অপরাহ্ন

বিশেষ প্রতিবেদন ।মিয়ানমারের রাখাইনে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহে ১৯ জুলাই শুক্রবার কক্সবাজার শরনার্থী শিবিরে তথ্য সংগ্রহে এসেছেন আইসিসি’র প্রধান প্রসিকিউটর ফেতো বেনসুদা’র নেতৃত্বে ৩ সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) একটি প্রতিনিধি দল।

কক্সবাজারে অবস্থান করে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করবে এবং এরপর তাদের প্রতিবেদন আদালতে জমা দেবে।

এর আগে ১৮ জুলাই রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার প্রসিকিউটর কার্যালয়ের ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্ট জানান, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বিচারকদের অনুমতি পেলে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নির্যাতনের তদন্ত অক্টোবর নাগাদ শুরু হতে পারে।

তিনি বলেন, তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহে কক্সবাজারের আশ্রয় শিবিরে যাচ্ছে আইসিসি প্রতিনিধি দল। তদন্ত শুরুর আগে বাংলাদেশ সরকারের নানা পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকও করেছেন তারা। আলোচনায় সমঝোতা স্মারক সইয়ের বিষয়টিও তুলে ধরেছেন তারা।

আইসিসির কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নেই জানিয়ে জেমস স্টুয়ার্ট বলেন, তাদের মূল লক্ষ্য নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা। তিনি বলেন, মিয়ানমার আইসিসির সদস্য না হলেও বাংলাদেশ আইসিসির সদস্য হওয়ায় এই বিচার প্রক্রিয়া শুরু করা সম্ভব।

এক প্রশ্নের জবাবে স্টুয়ার্ট জানান, তদন্তের সঙ্গে যুক্ত তথ্য সংগ্রহের স্বার্থে আইসিসির মিয়ানমার সফরের প্রস্তাব নাচক করে দিয়েছে নেপিদো।

প্রসঙ্গত মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অত্যাচার থেকে মুক্তি পেতে অন্তত ৭ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে। জাতিসংঘের একাধিক প্রতিবেদনে মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য মিয়ানমারের শীর্ষ সেনাকর্মকর্তাদের দায়ী করা হলেও মিয়ানমার যেকোনো ধরনের গণহত্যা বা জাতিগত নিধনের কথা অস্বীকার করে আসছে।