দশজনের করোনা পজেটিভ ঈদগাঁওতে

প্রকাশ: ২২ মে, ২০২০ ১১:৩২ : অপরাহ্ন

এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁও।

করোনা থেকে সুরক্ষায় সরকার ও জেলা প্রশাসন লকডাউন জারি করার পরেও এলাকার জনগণ ও দোকানদার তা মান্য করছেনা। ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে সদরের বৃহৎ বানিজ্যিক কেন্দ্র ঈদগাঁও বাজারে জনসমাগম ফের বেড়েই চলছে। ২১ মে বৃহত্তর ঈদগাঁওতে ৬ জন করোনা পজেটিভ হওয়ার পরেও বাজারে নরনারী ক্রেতাদের উপচেপড়া ভীড় লেগে রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ঈদগাঁও বাজারে শপিং মল খোলা রাখায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার মুক্তার নুর শপিং কমপ্লেক্সের চার দোকানদারকে আটক করে ৭ দিনের সাজা দেন। ঐদিন করোনায় পজেটিভ আসে ঈদগাঁও মড়েল হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিস কেয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা: মো: ইউসুফ আলী,ফার্মেসী ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবিরসহ ৬ জন। এত কিছুর পরও ঈদ কেনাকাটা থামেনি বাজারে। পাড়া মহল্লা থেকে লোকজন বাজারমুখী হচ্ছেন। এ নিয়ে আতংকে রয়েছেন এলাকার সাধারন মানুষ।

শুক্রবার ভোর সকাল থেকে কিছু কতিপয় দোকান দার দোকান খুলে বসে। সেই সময়ে পাড়া মহল্লার ক্রেতারা এসে থাকেন ঈদ কেনাকাটা করতে। বৃহৎ এলাকার গ্রামীন জনপদের লোকজন রিক্সা,টমটম, সিএনজি যোগে ঈদগাঁও বাজারমুখী হচ্ছে। সকাল ৭টার পরপরেই ঈদগাঁও বাজার এলাকায় নারী পুরুষের ঢল নামে। অধিকাংশ শিশু এবং মহিলা। জনসমাগম ঠেকানোর মত নেই ব্যবস্থা। বাজারে আসা অনেকের নেই সামাজিক,শারীরীক দূরত্ব আর মুখে নেই মাস্ক।

তবে সচেতন মানুষ জানান,জেলার মধ্যে ঈদগাঁও এলাকার জনগণ কোনভাবেই করোনা সুরক্ষায় সরকার যেসব নির্দেশনা দিয়েছে তার তোয়াক্কা কর ছেনা। বিশেষ করে, সিংহভাগ মানুষ মাস্ক ব্যবহার  ও সামাজিক দূরত্বতো একদম নেই।

উল্লেখ্য, কদিন পূর্বে আরো চারজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। তৎমধ্যে দুইজন ইসলামাবাদে,দুইজন ঈদগাঁওর। সামাজিক দুরত্ব বজায় আর মুখে মাস্ক ব্যবহারের কথা বলা হলেও কর্ণপাত করছেন না গ্রামীন জনপদের লোকজন।