এলজিইডি হিসাবরক্ষককে মারধর: স্বামীসহ নারী ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশ: ২৮ জুলাই, ২০২০ ১২:৪৮ : অপরাহ্ন

চট্টগ্রাম ব্যুরো।

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় ঠিকাদারী বিলের ফাইল না ছাড়ায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) অফিসের জিনিসপত্র ভাংচুর ও হিসাবরক্ষককে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগমে বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় তাঁর স্বামী মামুনুর রশিদসহ অজ্ঞাত আরও ৭-৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। সোমবার (২৭ জুলাই) রাত ১০টার দিকে এলজিইডি অফিসের হিসাবরক্ষক রফিক উল্লাহ বাদি হয়ে কর্ণফুলী থানায় এ মামলা দায়ের করেন। কর্ণফুলী থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মো. ইসমাইল হোসেন বিষয়টি দৈনিক পূর্বকোণকে নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, অশ্লীল ভাষায় কথা বলা ও ফাইল প্রসেসিং জন্য ঘুষ দাবির অভিযোগে কর্ণফুলী উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও এলজিইডি বিভাগের সহকারী হিসাবরক্ষক রফিকুল ইসলামের বহিস্কারের দাবিতে সোমবার (২৭ জুলাই) বিকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে মানববন্ধন করেছে উপজেলা সাধারণ জনগণ ব্যানারে উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দরা। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য জোবাইদা আকতার, জোসনা বেগম, নারগিস আকতার, নুর নাহার বেগম, চরপাথরঘাটা ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য হালিমা আকতার।

এর আগে সোমবার সকালে চট্টগ্রাম স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম। অভিযোগপত্রে ২০১৯-২০ অর্থবছরের ৫ কোটি টাকা বরাদ্দকৃত টাকা থেকে উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও সহকারী হিসাবরক্ষক রফিকুল ইসলাম ঠিকাদাররের কাছ থেকে ৬% হারে ঘুষ দাবি এবং ঘুষ দিতে না চাইলে দু’জনেই ফাইল আটকে রেখে বিভিন্ন অজুহাত দেখানোর অভিযোগ আনা হয়।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার (২৬ জুলাই) দুপুরে উপজেলা পরিষদের উপজেলা প্রকৌশল অফিসের হিসাবরক্ষক মো. রফিল উল্লাহর কক্ষে উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগমের মালিকানাধীন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিসাম কস্ট্রাকশনের ১০% জামানত ফেরত সংক্রান্ত ফাইলে স্বাক্ষর না করা নিয়ে দু’জনের মধ্যে তর্কাতর্কি শুরু হলে একপর্যায়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও হামলা চালান নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম।