চট্টগ্রাম-৮–এ জিতলেন নৌকার মোছলেম

প্রকাশ: ১৩ জানুয়ারী, ২০২০ ১০:২১ : অপরাহ্ন

চট্টগ্রাম ব্যুরো।

চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন আহমদ জিতেছেন। আজ সোমবার রাতে নগরীর জিমনেসিয়ামের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান ফল ঘোষণা করেন।

আজ সকাল নয়টায় ভোট গ্রহণ শুরু। চলে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত। উপনির্বাচনটি সম্পূর্ণ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) অনুষ্ঠিত হয়।

নির্বাচনে ১৭০ কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকে মোছলেম উদ্দিন আহমদ পান ৮৭ হাজার ২৪৬ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকে আবু সুফিয়ান পান ১৭ হাজার ৯৩৫ ভোট।

এ নির্বাচনে মোট প্রার্থী ছিলেন ছয়জন। অন্য প্রার্থীদের মধ্যে বিএনএফের আবুল কালাম আজাদ পান ১ হাজার ১৮৫, ন্যাপের বাপন দাশগুপ্ত পান ৬৫৬ ভোট, স্বতন্ত্র এমদাদুল হক ৫৬৭ ভোট ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের সৈয়দ মো. ফরিদ উদ্দিন ৯৯২ ভোট পান।

বাংলাদেশ জাসদের কার্যকরী সভাপতি মইন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে শূন্য হয় এই আসন। আর এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ উপনির্বাচন হয়।

উপনির্বাচনে ১৭০টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৪৮৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ১৯৮ জন। নারী ভোটার ২ লাখ ৩৩ হাজার ২৮৭ জন। আজ মোট ভোট পড়েছে প্রায় ২৩ শতাংশ।

আজ নির্বাচন চলাকালে বেলা একটার দিকে উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ স্থগিতের দাবি করেন বিএনপির প্রার্থী আবু সুফিয়ান। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে তিনি পুনরায় ভোট গ্রহণের আবেদন করেন। সুফিয়ান বলেন, ‘মোট ১৭০টি কেন্দ্রের মধ্যে অলমোস্ট সব কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। ভোটারদের যেতে দেওয়া হচ্ছে না।’

চট্টগ্রাম নগরের নাসিমন ভবনে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান আবু সুফিয়ান। তিনি আবার বেলা তিনটার দিকে বলেন, পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন তিনি। আর শেষ পর্যন্ত ভোটে থাকতে চান।

নির্বাচন নিয়ে সুফিয়ান বা বিএনপির অভিযোগ অবশ্য অস্বীকার করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। তিনি বলেন, স্বতঃস্ফূর্ত নির্বাচন হয়েছে। সবার অংশগ্রহণে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়েছে।

বিএনপি প্রার্থীর ভোট গ্রহণ স্থগিতের দাবি সম্পর্কে হাসানুজ্জামান বলেন, যেহেতু কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি, তাই এ দাবির প্রশ্নই আসে